উপজেলা প্রতিনিধি । হিলরিপোর্ট

কাপ্তাই: রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার কর্ণফুলী নদী থেকে অবশেষষে নিখোঁজ অপূর্ব সাহার (১৮) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) সকালে উপজেলার চিৎমরম ইউনিয়নের সীতাঘাট মন্দির এলাকা থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।
এর আগে বুধবার বিকেলে লোকেস বৈদ্যর (১৯) মরদেহ উদ্ধার করে কাপ্তাই নৌবাহিনী ডুবুরী দল।

মৃত লোকেস বৈদ্য চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার শাকপুরা গ্রামের অপু বৈদ্যর ছেলে। তিনি চট্টগ্রাম ইসলামীয়া কলেজে প্রথম বর্ষে অধ্যায়নরত। মৃত অপূর্ব সাহা চট্টগ্রাম মহানগরের মাদারবাড়ি এলাকার মৃত অপরুপ সাহার ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে- বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার চিৎমরম ইউনিয়নের সীতাঘাট মন্দির এলাকায় জেলেদের মাছ ধরার রশির টানের সাথে ভেসে উঠে অপূর্ব সাহার মরদেহ। পরে উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দলের সদস্যরা মরদেহটি উদ্ধার করে। অপরদিকে বুধবার সন্ধ্যায় লোকেস বৈদ্যর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

চন্দ্রঘোনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন- দু’টি মরদেহ তাদের স্ব-স্ব পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বুধবার সকালে চট্টগ্রাম থেকে ৬জনের পর্যটক দল কাপ্তাই উপজেলার চন্দ্রঘোনা মিশনঘাট এলাকায় বেড়াতে আসেন। সেখান থেকে তারা নৌকা ভাড়া করে দুপুরে (ইঞ্জিন চালিত) প্রথমে চিৎমরম বৌদ্ধবিহার ঘাটে যায়। এরপর সেখান থেকে তারা বিকেলে সীতাঘাট মন্দির এলাকায় যাত্রা করে এবং ওই স্থানে গিয়ে কর্ণফুলী নদীতে গোসল করতে নামে। এসময় নদীর স্রোতে ৬পর্যটকের মধ্যে তিনজন নদীর তীরে ফিরে আসতে সক্ষম হলেও তিনজন ভেসে যান। তবে ভেসে যাওয়া তিনজনের মধ্যে একজনকে নদী থেকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করে কাপ্তাই ফায়ার সার্ভিস ডুবুরী দল।