॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

রাঙামাটি শহরের ৪০পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী প্রদান করেলা রাঙামাটি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ। বুধবার (০১এপ্রিল) বিকেলে শহরের বিভিন্ন স্থানে এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

প্রতি পরিবারকে চাল ৩ কেজি, আলু ২ কেজি, পিয়াস ৫০০গ্রাম, তৈল ৫০০ গ্রাম, ডাল ৫০০গ্রাম, লবন ৫০০ গ্রাম এবং ১টি সাবান প্রদান করা হয়।

বিশ্ব মহামারী নোভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ রাঙামাটি জেলার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সদস্য দীপংকর তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক হাজী মুছা মাতব্বর এর নির্দেশনা অনুযায়ী রাঙামাটি সরকারি কলেজ শাখা ও জেলা শাখার নেতৃবৃন্দরা জনসচেতনতা মূলক কর্মসূচী নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে ধারাবাহিকভাবে মাঠে কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমান করোনা সংকটে কর্মহীন ও হত দরিদ্রদের স্বল্পদিনের আহার হিসেবে এসব ত্রান বিতরন করা হয়েছে।

কলেজ শাখার সভাপতি সুলতান মাহমুদ বাপ্পা, সহ-সভাপতি নুর আলম, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসকাতুর রহমান, সদস্য ববি দাশ, ১নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, যুবলীগনেতা সাইফুল ইসলাম, মোঃ মমিন, নজরুল ইসলাম নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত থেকে বিতরণ এসব বিতরণ করা হয়।

এদিকে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজন বলেন, আমি হতবাক, বিস্মিত। কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি অনেক আগে বিলুপ্তি ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে বিদায়ী কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি বাপ্পা কি করে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতির পরিচয় দিয়ে দলীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করছে তা আমি বোধগম্য নয়। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং অভিলম্বে এসব বিয়য়ে দলীয় উর্দ্ধতন মহলকে অবহিত করা হবে বলে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার যোগ করেন।

প্রসঙ্গত: রাঙামাটি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সর্বশেষ কাউন্সিলের দিনে দুই পক্ষের বিরোধে সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছিলো। এরপর এখনো রাঙামাটি কলেজে ছাত্রলীগের নতুন কোন কমিঠি গঠিত হয়নি। কিন্তু বিদায়ী সভাপতি সুলতান মাহমুদ বাপ্পা এবং সাারন সম্পাদক আহম্মেদ ইমতিয়াজ রিয়াদ সম্প্রতি ফের নিজেদের সভাপতি-সম্পাদক দাবি করে দলীয় বিভিন্ন কর্মকান্ডে পরিচালনা করছেন। তবে জেলা ছাত্রলীগকে চ্যালেঞ্জ করে নিজেদের পক্ষের দুজনকে দিয়ে নিয়ে পাল্টা জেলা কমিটি ঘোষণা করায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাপ্পাসহ তাদের পক্ষের ৬ ছাত্রনেতাকে বহিষ্কারের কথা জানিয়েছে।