ঝুলন দত্ত, উপজেলা প্রতিনিধি । হিলরিপোর্ট

কাপ্তাই: কাপ্তাইয়ের সোনালী ব্যাংকের ১ লাখ টাকা ফেরত দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন কাপ্তাই নতুনবাজার কাঁচামাল ব্যবসায়ী মোঃ আল আমিন। তাঁর সততা এখন মানুষের মুখে মুখে। কাঁচামাল ব্যবসায়ী আল আমিন এই প্রতিবেদককে জানান, সেই এবং তাঁর ভাই আবু কালাম বুধবার( ৯ জুন) সকাল ১১ টায় সোনালী ব্যাংক বড়ইছড়ি শাখায় যান ১ লাখ টাকার চেক তুলতে। এই সময় তিনি কাউন্টারে চেকটা দিলে একাউন্স হতে চেকের পেছনে মোবাইল নাম্বার লিখতে বললে তিনি পাশের টেবিলে চেকের উপর মোবাইল নাম্বার লিখতে যান, ইতিমধ্যে তাঁর ভাইকে কাউন্টার হতে ১ লাখ প্রদান করা হয় এবং সেই টাকা নিয়ে ব্যাংকের বাহিরে চলে যান। কিছুক্ষণ পর তিনি ঐ চেকটা নিয়ে আবার কাউন্টারে গেলে তাঁকেও ঐ চেকের বিপরীতে ১ লাখ টাকা প্রদান করা হয়।

এরপর তিনি বাসায় যান এবং তাঁর ভাই এসে জানান সেইও ঐ চেকের বিপরীতে ১ লাখ টাকা নিয়েছেন । তিনি বিষয়টি বুজতে পেরে তৎক্ষনাৎ সিএনজি রিজার্ভ করে সোনালী ব্যাংক বড়ইছড়ি শাখায় গিয়ে ব্যাংকের শাখা ব্যবস্হাপক মোঃ জসিম উদ্দিন এর হাতে বাড়তি ১ লাখ টাকা ফেরত দেন। এইসময় রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের সদস্য কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অংসুইছাইন চৌধুরী, চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান উপস্থিত ছিলেন।

সোনালী ব্যাংক বড়ইছড়ি শাখার ব্যবস্হাপক মোঃ জসিম উদ্দিন জানান, একই চেকের বিপরীতে তাঁরা ২ ভাই ১ লাখ টাকা করে মোট ২ লাখ টাকা নিয়ে বাড়িতে চলে যান, পরে অবশ্যই তাঁরা বিষয়টি ভূল বুজতে পেরে শাখায় এসে বাড়তি ১ লাখ টাকা ফেরত দেন।

এইসময় উপস্থিত রাঙামাটি জেলা পরিষদ এর সদস্য অংসুইছাইন চৌধুরী জানান, আল আমিন এর সততা তাঁকে মুগ্ধ করেছে। আল আমিন এর মতো যদি সততা দেশের সব নাগরিকের থাকতো তাহলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গঠনে আমরা আরোও এগিয়ে যেতে পারতাম।