মঈন উদ্দীন বাপ্পী । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ট সন্তান শেখ রাসেলকে স্মরণীয় করে রাখতে রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (১৮অক্টোবর) বিকেলে জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ঘাটে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিযোগিতায় নারী-পুরুষ উভয়ের মাঝে এই সময় আনন্দের ফোয়ারা বয়ে যায়। বেশ কয়েক বছর ধরে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের পৃষ্ঠপোষকাতায় এই দিনে শেখ রাসেলকে স্মরণীয় করে রাখতে রাঙামাটিতে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

প্রতিযোগিতায় পুরুষ বিভাগ বড় নৌকায় (২১জনের) যুবরাজ ত্রিপুরার দল প্রথম, সুবিল ত্রিপুরার দল দ্বিতীয় এবং সিরাধন ত্রিপুরার দল তৃতীয় স্থান অধিকার করে। নারী বিভাগ বড় নৌকা প্রতিযোগিতায় (১৫জনের) আলো ত্রিপুরার দল প্রথম, মিতা ত্রিপুরার দল দ্বিতীয় এবং সুমিতা ত্রিপুরার দল তৃতীয় স্থান অধিকার করে।

এছাড়াও পুরুষদের সাম্পান (২জন করে) প্রতিযোগিতায় জলন্ত ত্রিপুরার দল প্রথম, মো. সুমন এর দল দ্বিতীয় এবং মো. জামাল এর দল তৃতীয় স্থান অধিকার করে। নারীদের কায়াক প্রতিযোগিতায় (২জন করে) তাপসি চাকমার দল প্রথম, মিতা ত্রিপুরার দল দ্বিতীয় এবং সোনিয়া চাকমার দল তৃতীয় স্থান অধিকার করে।

অনুষ্ঠানে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদূর ঊশৈসিং এমপি প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আর পিছিয়ে নেই। প্রধানমন্ত্রী তার সুদৃষ্টি দিয়ে পাহাড়ের উন্নয়নে সারাদেশের মতো কাজ করছেন। বিশ্বে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। সারা বিশ্বের তিনজন প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে শেখ হাসিনা একজন।

মন্ত্রী আরও বলেন, এই প্রতিযোগিতা শুধু রাঙামাটির মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে। প্রয়োজনে তিন পার্বত্য জেলা পরিষদসহ প্রশাসনের সকলকে সমন্বয় করতে হবে। এইজন্য বরাদ্ধের টাকাও বাড়ানো হবে।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসক (ডিসি) একেএম মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে এই সময় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন- পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, রাঙামাটি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ ইফতেকুর রহমান।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- পুলিশ সুপার মো. আলমগীর কবির, সিভিল সার্জন ডা: বিপাশ খীসা, রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী এবং রাঙামাটি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান মহসিন রোমানসহ প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তা এবং জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যরা।