॥ আল মামুন, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলা শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে শোকজ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, উপজেলা শিক্ষা অফিসার ‘মোঃ মিনহাজ উদ্দিন’ উপজেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান ও সহকারি শিক্ষকদের শোকজ করার ভয়ভীতি দেখিয়ে ১০-১৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন তিনি।

তার চক্রান্তে হয়রানি শিকার হচ্ছে দুর্গম পাহাড়ি জনপদের সরকারি স্কুলের কর্মরত শিক্ষকরা। চাকুরি হারানোর ভয়ে নাম প্রকাশে অচ্ছিুক এক শিক্ষক জানান, ‘শিক্ষা অফিসার মিনহাজ উদ্দিন বেশ কিছুদিন ধরে শোকজ করার ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন শিক্ষকদের কাছ থেকে ১৫-২০ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছেন।

ঐ শিক্ষক আরো বলেন, কিছুদিন আগে ব্যক্তিগত জরুরী কাজে বাজারে যাই। বাজার থেকে ফিরে জানতে পারি বিদ্যালয় পরিদর্শনে আসেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মিনহাজ উদ্দিন । পরে তিনি তাকে শোকজ করা হয়েছে জানিয়ে অফিসে যেতে বলে। পরে এক পর্যায়ে ৫০০০ টাকায় বিষয়টি দফারফা হয়। দফারফা হওয়ার পর শোকজ বাতিল করা হয় ।

একই অভিযোগে আরেক শিক্ষক বলেন,‘ উঁচু নিচু পাহাড়ি পথে ১ ঘন্টা সময় পায়ে হেঁটে স্কুলে যেতে হয়। মাঝে মধ্যে স্কুলে যেতে একটু দেরি হলে ধমক দিয় অফিস অথবা বাসায় দেখা করতে বলে। শোকজ করার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করে। আর না দিতে চাইলে শোকজ করে এবং পরে টাকা দিলে তা আবার বাতিল করে।

তবে শোকজের বিষয়টি অস্বীকার করেন, শিক্ষা অফিসার মিনহাজ উদ্দিন বলেন, ২/৪ মাসের মধ্যে শোকজের কোন ঘটনা নেই। কিছু অসত শিক্ষকেরা বিভিন্ন অজুহাতে বিদ্যালয় ফাঁকি দেওয়ার বিষয়ে সুযোগ না দেওয়ায় এ ধরণের ভিত্তিহীন অভিযোগ করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন জানান,‘বিষয়টি আমার জানা নেই। এই বিষয়ে খোঁজ খবর নেয়া হবে।’