॥ দীপ্ত হান্নান ॥

মুহুর্মুহু দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপ ফুটবল। প্রিয় দলের পতাকা পত পত করে উড়ছে বাসা বাড়ির ছাদগুলোতে। সব ছাপিয়ে আলোচনা তালিকায় শীর্ষে ঔ ফুটবলই। উত্তেজনায় টাসা বিশ্বকাপ ফুটবল উন্মাদনা এখন সর্বত্রই। চলছে বিশ্বকাপ গ্রুপ গুলোর চুলচেরা বিশ্লেষন। কারা যাবে পরে রাউন্ডে, কে বা বিদায় নিবে প্রথম রাউন্ড থেকেই। প্রতিদিন হিসাব চলে, সহজ-জটিল সমীকরনে। ফুটবলের এই বিশ্বযুদ্ধে গ্রুপ টপকাতে পারে কারা? এমন সম্ভাব্য আলোচনাটি করে নেয়া যাক-

গ্রুপ-এ : স্বাগতিক রাশিয়া, ল্যাটিন পরাশক্তি উরুগুয়ে, আফ্রিকার দেশ মিশর ও এশিয়ার সৌদি আরব আছে এ গ্রুপে। এর মধ্যে সুয়ারেজ, কাভানির উরুগুয়েকেই ফেবারিট মানছেন সবাই। তবে আলাদা করে সবার চোখ থাকবে লিভারপুল তারকা মোহামেদ সালাহ’র দিকে। যদিও বা চ্যাম্পিয়ন কাপের ফাইনালে আঘাত পেয়ে মাঠের বাইরে চলে গিয়েছেন। ফিট হয়ে বিশ্বকাপের মুল পর্বে নামতে পারলে, কিছু একটা করে দেখাতে পারে এ তারকা। তাঁর উপর ভর করে স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরবকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় রাউন্ডে মিশর যেতে পারবে বলে অনেকেরই মত।

গ্রুপ- বি : টিকিটাকা কৌশলের স্পেন ও ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর পর্তুগালের সঙ্গে বি গ্রুপে আছে মরক্কো ও ইরান। ধরেই নেয়া যায়, কোনো অঘটন না ঘটলে স্পেন ও পর্তুগালই দেখবে দ্বিতীয় রাউন্ডের মুখ। এই বিশ্বকাপটি রোনাল্ডোর চতুর্থ বিশ্বকাপ। ফর্মের তুঙ্গে থাকা রোনাল্ডোর দিকে তাকিয়ে আছে পুরো পর্তুগাল। দলের জন্য কতটা কী করতে পারেন তা দেখার অপেক্ষায় ফুটবলপ্রেমীরা। তারকাখচিত স্পেনও এবার শিরোপার জন্য উন্মুখ। আন্ডারডগ মরক্কো ও ইরান একেবারে খারাপ করবে না।

গ্রুপ- সি : ফ্রান্স, ডেনমার্ক, পেরু ও অস্ট্রেলিয়া নিয়ে গ্রুপ সি। শক্তিমত্তায় ফ্রান্স যে এবারের শিরোপার লড়াইয়ে প্রথম সারিতে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। দলে রয়েছে একঝাঁক পরীক্ষিত সৈনিক। গত বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে স্পেন, হল্যান্ড ও চিলির মাঝখানে চ্যাপ্টা হওয়া অষ্ট্রেলিয়ানদের জন্য এবার দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করার সুযোগ আছে। ডেনমার্কেও আছেন কয়েকজন প্রতিভাবান খেলোয়াড়৷ আর ১৯৮২ সালের পর এই প্রথম বিশ্বকাপের মূল পর্বে জায়গা করে নেয়া পেরু মরন কামড় বসাতে পারে।

গ্রুপ- ডি : তাবৎ বিশ্বের দর্শকের আলোচনায় রয়েছে গ্রুপ ডি। একজন মেসিই খেলবে এই গ্রুপে। ফুটবল বিশ্বে অন্যগ্রহের খেলোয়াড় মানা হয় যাকে। আরো আছে ক্রোয়েশিয়া, নাইজেরিয়া ও আইসল্যান্ড। বিশ্বকাপ শুরুর আগে ইনজুরির আক্রান্ত আর্জেন্টিনাকে কোন্ জাদুকরি খেলায় গ্রুপ পর্ব বৈতরণী পার করবে সেদিকে নজর তাকবে সবার। নিজেদের খেলা খেলতে পারলেই গ্রুপ পর্ব সহজেই পেরিয়ে যাবে সে বিষয়ে খুব একটা সন্দেহ নেই। তবে ইতিহাসে প্রথমবার বিশ্বকাপে জায়গা করে নেয়া আইসল্যান্ড ছেড়ে দিয়ে কথা বলবে না। অন্যদিকে, ক্রোয়েশিয়া ও নাইজেরিয়া দুই দলই নির্ভর করছে তাদের বর্ষীয়ান খেলোয়াড়দের ওপর।

গ্রুপ- ই : ব্রাজিল এমন একটি দল যারা সবসময়ই শিরোপার দাবিদার। তবে ২০০২ সালের পর আর শিরোপা ছুঁয়ে দেখা হয়নি তাদের। এবার সে সম্ভবনা কতদূর, তার ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ চলছে। ই গ্রুপে আর যারা আছে, তাদের মধ্যে সুইজারল্যান্ডকে এগিয়ে রাখছেন অনেকেই। এছাড়াও আছে সার্বিয়া ও কোস্টারিকা। কিছু একটা করে দেখাতে পারে তারাও।

গ্রুপ- এফ : বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি আছে এই গ্রুপে। জার্মানরাও এবারো শিরোপার দাবিদার। যদিও বা শেষ দুটি প্রীতি ম্যাচে তাদের সেরা খেলাটা তুলে ধরতে পারেনি। গ্রুপ পর্বে দক্ষিণ কোরিয়া ও সুইডেন বাঁধা হয়ে দাড়ায় কি না সেটাই দেখার বিষয়। অন্যদিকে হাভিয়ের হার্নান্দেজের মেক্সিকোর সঙ্গে গ্রুপ পর্বে লড়াইটা জমবে বলে মনে হচ্ছে।

গ্রুপ- জি : ইংলিশরা আছে এই গ্রুপে। আছে শক্তিশালী বেলজিয়ামও। আর আছে পানামা ও তিউনিসিয়া। শেষ দুই বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বই পেরুতে পারেনি ইংলিশরা। তবে এবার সে সম্ভাবনা আছে তাদের সামনে। বেলজিয়ামও গ্রুপের ফেবারিট৷ তবে পানামা ও তিউনিসিয়া অঘটন ঘটাতে উদগ্রীব। দুই দলই ভালো খেলেছে বাছাই পর্বে।

গ্রুপ- এইচ: ফুটবল বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশ্বকাপের গ্রুপ অফ ডেথ ধরা হচ্ছে এইচ গ্রুপকে। হামেস রডরিগেজের কলম্বিয়া গতবার যে চমক দেখিয়েছে তা এবার কতটা ধরে রাখতে পারবে বোঝা যাবে গ্রুপ পর্বেই। কারণ, গ্রুপে আছে শক্তিশালী পোল্যান্ড। আছে পরিশ্রমী সেনেগাল ও জাপান। পোলিশরা ফেবারিট হলেও কোন দু’টি দল শেষ ষোল নিশ্চিত করবে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না। জমজমাট লড়াই হতে পারে এই গ্রুপটিতে।