॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

গুইমারা উপজেলার আড়বাড়ী পাড়া এলাকায় ১৫ বছরের কিশোরীকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করেছে মাটিরাঙ্গা ৯নং পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল খালেকের ভাতিজা ও মৃত আব্দুল কাদের-এর পুত্র আমির হোসেন। এ ঘটনায় অন্তসত্তা হয়ে পড়েছে সে কিশোরী। ধর্ষিতা গুইমারা সদর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বিপুল কান্তি ত্রিপুরা’র ছোট বোন। ১৯ শে মার্চ ২০১৯ ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষিত মেয়েটিকে মাটিরাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরে কিশোরী তার প্রতি করা অবিচারের শাস্তি ও সু-বিচার দাবী করেন।

ধর্ষিতা মেয়েটির অভিযোগ-ছেলেটি ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। যার কারনে আড়বাড়ী পাড়ায় আসা-যাওয়া করতো। গত তিন মাস পূর্বে ছেলেটির সাথে পরিচয় হয়েছে। ছেলেটি বিভিন্ন লোভ-লালসা ও প্রাণ নাশের হুমকির মাধ্যমে মেয়েটিকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করতে থাকে। কিন্তু নিরুপায় হয়ে মেয়েটি কারো কাছে মুখ খুলতে সাহস পায়নি।

এক পর্যায়ে মেয়েটি অর্ন্তসত্তা পড়লে ছেলেটি মাটিরাঙ্গা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সম্পূর্ণ বিষয়টি লোকালয়ে চলে আসে এবং মেয়েটিও সবকিছু বলতে সাহস পায়। এ নিয়ে প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিকট বিচার দাবী করে এলাকাবাসী। এছাড়াও যোগাযোগের মাধ্যম ফেইসবুকে এই অপকর্মের বিচারের দাবী করা হয়েছে।

মেয়েটির ভাই বলেন, ঘটনাস্থলে গুইমারা থানার সাব ইন্সপেক্টর আব্দুল কাদের এসে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়েও আসামীকে অদ্যবদি পর্যন্ত আটক করেনি গুইমারা থানা পুলিশ। অন্যদিকে, মাটিরাঙ্গা পৌর কাউন্সিলর আঃ খালেকের ক্ষমতাবান বলে তার ভাতিজা আমির হোসেনকে বাচিয়ে নেওয়ার পায়তার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ বিদ্যুৎ কুমার বড়–য়াকে বার বার ফোন করার পরও বিভিন্ন অজুহাতে বক্তব্য দেননি।