॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা থেকে ২৭জনকে অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। রোববার (৮জুলাই) সকালের দিকে উপজেলার বুড়িঘাট ইউনিয়নের হাতিমারা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

২৭জন অপহরণের মধ্যে ১১জনের নাম জানা গেছে। অপহৃতরা হলো- চন্দিলাল চাকমা (৩২), সোনামণি চাকমা (৩৮), বায়ুধন চাকমা (৫২), রাতু মণি চাকমা (৪৫), শ্যামল কান্তি চাকমা (৪৫), প্রত্যেমোহন চাকমা (৫৫), সুইধন চাকমা (৩০), নবরতন চাকমা (৪৫), লদ্রু সেন চাকমা (৫০), দেব রঞ্জন খীসা (৫০) এবং সুনীল কন্তি চাকমা (৫০)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রতিদিনের ন্যায় উপজেলার স্থানীয়বাসিরা কাঁচামাল নিয়ে কুতুকছড়ি বাজারের উদ্দেশ্য নৌকাযোগে (ইঞ্জিন চালিত নৌকা) যাওয়ার সময় একদল সশস্ত্র দুর্বৃত্ত হাতিমারা মুখ-ক্যারেটছড়ি এলাকার দোরের টিলা এলাকায় নৌকাগুলোর গতিরোধ করে প্রতিটি নৌকা থেকে এক-দু’জন করে ২৭জনকে নিয়ে যায়। জানা যায়, অপহৃতরা সকলে নানিয়ারচর উপজেলার বাসিন্দা।

ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট’র (ইউপিডিএফ) রাঙামাটি জেলার সংগঠক সচল চাকমা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফ বর্মা গ্রুপ এবং জেএসএস সংস্কারকে দায়ি করেছে।

এ বিষয়ে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট’র (ইউপিডিএফ) মুখপাত্র মাইকেল চাকমা জানান, প্রতিদিনের ন্যায় উপজেলার সাধারণ মানুষেরা মালামাল ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য কুতুকছড়ি বাজারের উদ্দেশ্য নৌকাযোগে যাতায়াত করে। কিন্তু রোববার সকালে ইউপিডিএফ বর্মা গ্রুফের সশস্ত্র সদস্য প্রত্যয় চাকমা, রণয় চাকমা এবং জেএসএস সংস্কার’র সশস্ত্র সদস্য প্রগতি চাকমা, রূপম চাকমার নেতৃত্বে সাধারণ মানুষদের অপহরণ করা হয়েছে। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং সোমবার ( ৯জুলাই) সকালে মানববন্ধন করা হবে বলে এ নেতা জানান।

নানিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ জানান, আমি এ ধরণের ঘটনার খবর শুনিনি।