॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

পার্বত্য অঞ্চলে প্রাথমিক শিক্ষায় ঝড়ে পড়ার হার রোধ এবং প্রতিটি শিশুকে স্কুল মুখী করতে বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা নতুন করে বাস্তবায়ন করতে হবে বলে জানিয়েছেন বক্তারা।

বক্তারা বলেন, রাঙামাটি জেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা, বিদ্যালয় গমনোপযোগী শিশুদের বিদ্যালয়ে নিয়ে আসা, জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোতে স্কুল ফিডিং ব্যবস্থা করার মতামত ব্যক্ত করেন। যোগাযোগের কৌশল বাস্তবায়ন ও মনিটরিং বিষয়ক সঞ্জিবনী কর্মশালা ২৪ জুন রোববার রাঙামাটিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা ক্রীড়া সংস্থা সন্মেলন কক্ষে আয়োজিত দিনব্যাপী কর্মশালায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্যে দেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর চট্টগ্রামের সিনিয়র উপ-পরিচালক তাপস কুমার পাল, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রওশন আলী, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল হোসেন।

দিনব্যাপী কর্মশালায় জেলার উপজেলার উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ অংশ নেন।

কর্মশালায় বক্তারা বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের দুর্গমতাকে চিন্তা করে সংশোধনী সহ নতুন নতুন কিছু পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। সরকারের উচ্চ পর্যায়ে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা গেলে পার্বত্য অঞ্চলের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর শিশুদেরকে আরো বেশী স্কুল মুখী করানো সম্ভব হবে।

বক্তারা এই জন্য বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়মিত উপস্থিতি নিশ্চিত করণ এবং ছাত্র ছাত্রীদের সাথে ভালোভাবে আচরণ ছাড়াও প্রতিনিয়ত অভিভাকদের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে এই কাজে সফলতা আসবে বলে মত ব্যক্ত করেন ।

 কর্মশালায় জেলার উপজেলার উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সুশীল সমাজের প্রশিক্ষণ প্রদান করেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর চট্টগ্রামের সিনিয়র উপ-পরিচালক তাপস কুমার পাল, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল হোসেন।