মঈন উদ্দীন বাপ্পী, হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: পার্বত্য চট্টগ্রামে অনেক উন্নয়ন হয়েছে, এটা ভাল জায়গা। সরকার এখানে শান্তিপূর্ণ সহঅবস্থান নিশ্চিত করতে কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন- জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ।

চেয়ারম্যান বলেন- কমিশন গঠন হওয়ার পর আমরা পার্বত্য চট্টগ্রামকে গুরুত্ব দিয়ে পুরো টিম এখানে ছুটে এসেছি এই এলাকার মানুষের কথা শুনবো বলে। দেশের অন্য কোথাও আমাদের পুরো টিম যায় না। এখানে এসে যত অভিযোগ, যত সমস্যার কথা শুনেছি, সবকিছু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করবো এবং প্রতিকারের জন্য কাজ করা হবে।

চেয়ারম্যান আরও বলেন-মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় পার্বত্য চট্টগ্রামকে আলাদা গুরুত্ব দিয়ে থাকে। পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নে তিনি বদ্ধপরিকর। পার্বত্য চট্টগ্রামে আজকের এই উন্নয়ন সব তার অবদান।

এনএইচআরসি চেয়ারম্যান ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন- অধিকার কেউ কাওকে দেয় না, আদায় করে নিতে হয়। এইজন্য কাজ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন- আজকে যেসব অভিযোগ, সমস্যার কথা আমরা শুনেছি আমরা সব নোট করেছি। যেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে সেখানে আমরা কাজ করবো।

এদিকে গণশুনীতে অংশ নেওয়া বিভিন্ন পেশাজীবি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধিরা চেয়ারম্যানের উদ্দেশ্যে বলেন- পাহাড়ের মানুষ ভাল নেই। এখানে ব্যবসা, চাকরী, এমনকি সরকারি উন্নয়নমূলক কাজ করতে গেলেও চাঁদা দিতে হয়। এখানে হত্যা, খুন, গুমের ঘটনা ঘটে। এখানে ভূমি জটিলতা রয়েছে। তাই এখানে সকল অরাজকতা বন্ধে অবিলম্বে সেনাক্যাম্প পূণ:স্থাপনের দাবি জানান তারা। এছাড়াও পাহাড়ে বসবাসরত একটি গোষ্ঠি চাকরী, কলেজ, বিশ^বিদ্যালয়ের সকল সুবিধা ভোগ করলেও বাঙালী জনগোষ্ঠি সরকারি সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এ সমস্যা নিরসনের দাবি জানান তারা।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে এসময় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য মো. আমিনুল ইসলাম, কাওসার আহমেদ, নারায়ণ চন্দ্র সরকার, মো. সেলিম রেজা, কংজরী চৌধুরী, রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী এবং পুলিশ সুপার মীর আবু তৌহিদসহ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ এ শুনানীতে অংশ নিয়েছেন।