॥ প্রেস বিজ্ঞতি ॥

পার্বত্যাঞ্চলের অধিকার হারা বাঙালিদের প্রাণ প্রিয় সংগঠন পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদ। ১ লা নভেম্বর-১৮ ছিল সংগঠনটির ২৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। এ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী তিন পার্বত্য জেলার প্রত্যেকটি উপজেলাসহ ঢাকা,কুমিল্লা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম মহানগরী একযোগে জাকজমকভাবে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভার আয়োজন করে।
তবে রাঙামাটিতে প্রসাশনিক সকল শর্ত রক্ষা করে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনের সকল আয়োজন যখন সম্পন্ন, ঠিক সেই মূহুর্তে অর্থাৎ ৩১.১০.১৮ রাত ১০.০০টায় কোন এক অপশক্তির ইশারায় সম্পূন্ন মিথ্যা, বানোয়াট অভিযোগ এনে ২৭ বছরের বাঙালিদের একমাত্র অধিকার আদায়ের সংগঠন পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদ এর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনের অনুমতি প্রত্যাহার করে প্রসাশন।

পরে অন্যস্থানে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন শেষে সন্ধ্যা ৬.০০টার সময় রাঙামাটির বনরপার একটি রেষ্টুরেন্টে পর্যালোচনা বৈঠক করেন। পর্যালোচনা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সংহঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি এড.ইব্রাহিম মনির, কেন্দ্রীয় যুগ্ন সম্পাদক মোঃআলগীর হোসেন, রাঙামাটি জেলা সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম,সাধারন সম্পাদক আব্দুল মান্নান, প্রচার সম্পাদক আব্দুল্লা আল মোমিন, লংগদু মডেল কলেজ সভাপতি আনোয়ার হোসেন মনজুসহ জেলা,উপজেলা নেতৃবৃন্দ।

পর্যালোচনা বৈঠকে পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদ এর নেতৃবৃন্দ প্রসাশনের এহেন কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং যাদের ইন্ধনে প্রশাসন এমন ন্যাক্কারজনক কাজ করেছে তাদের পার্বত্যবাসী ক্ষমা করবে না বলে হুঁশিয়ার করে দেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন আমরা প্রসাশনকে সম্মান দেখিয়ে আমাদের অনুষ্ঠান নির্দিষ্ট স্থানে না করে অন্যস্থানে পালন করেছি। তবে ভবিষ্যতে এ ধরেন ষড়যন্ত্র হলে পার্বত্যবাসীকে সাথে নিয়ে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ ষড়যন্ত্রকারীদের দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারী দেন।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, দীর্ঘ ২৭ বছর সংগঠনটি পার্বত্য যে কোন ইস্যুতে আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছে তা প্রশাসনসহ পার্বত্যবাসী অবগত থাকার পরে ও কোন অদৃশ্য শক্তির ইশারায় প্রশাসন এহেন ঘৃণীত কাজ করেছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। আগামীতে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করার জন্য পার্বত্যবাসীকে ঐক্যবদ্ধ্য হওয়ার আহবান জানান নেতৃবৃন্দ