স্টাফ রিপোর্টার । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: পার্বত্য চট্টগ্রামে পিসিজেএসএস, ইউপিডিএফসহ সশস্ত্র সংগঠনগুলোর কার্যক্রম নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছেন,পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ। রোববার (১৬আগষ্ট) দুপুরে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে সংগঠনটি এক মানববন্ধন ও বিক্ষােভ সমাবেশ থেকে প্রশাসনের প্রতি এই দাবি তুলে ধরে।

সমাবেশে বক্তারা খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার বাবুছড়া সোনা মিয়া টিলা’র আব্দুল মালেকের পরিবারের উপর গভীর রাতে ইউপিডিএফ সন্ত্রাসী কর্তৃক ব্রাশফায়ার করে আব্দুল মালেকের স্ত্রীকে হত্যা উদ্ধৃতি টেনে বলেন, ৮১২ পরিবারের জন্য সরকারের দেওয়া ৫ একর সম্পত্তি উপজাতিরা দখল করে আছে দীর্ঘ ৩ যুগ থেকে এবং তাদেরকে সাহস দিচ্ছে উপজাতিদের সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ ও জেএসএস।

আব্দুল মালেক ছিল বাঙালীদের এই ভূমিহারা পরিবারের নেতা। সন্ত্রাসীরা মনে করেছে মোঃ আবদুল মালেককে হত্যা করতে পারলে বাঙালীদের জমি দখল করে রাখতে আর কোন বাধা থাকবেনা এবং ৮১২ পরিবারের পক্ষে আন্দোলন বন্ধ হয়ে যাবে।

বক্তারা আরো বলেন, সোনা মিয়া টিলার বাঙালীদের জায়গা দ্রুত বাঙালীদের নিকট বুঝিয়ে দিতে হবে এবং চিরুনী অভিযান পরিচালনা করে আব্দুল মালেকের স্ত্রীর হত্যাকারী সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে ফাঁসি দিতে হবে। আব্দুল মালেকের আহত ছেলেটিকে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।

পাশপাপাশি এই ঘটনার জন্য তীব্র নিন্দা জানিয়ে বক্তারা জানান, অবিলম্বে পার্বত্য চট্টগ্রামে একের পর এক সন্ত্রাসী কার্যক্রম বন্ধ করতে ও পাহাড়ে শান্তি আনতে জেএসএস ও ইউপিডিএফসহ সশস্ত্র পাহাড়ী সংগঠনগুলোকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে। তাহলে পাহাড়ে শান্তি আসবে।

মানববন্ধনে শেষে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের নেতাকর্মীরা রাঙামাটি চট্টগ্রাম মহাসড়ক আধাঘন্টাব্যাপী অবরোধ করে রাখে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মোঃ শাব্বির আহম্মেদের সভাপতিত্বে ও স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য মোঃ হাবিব আজম হাবিবের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলমগীর কবির, আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ সম্পাদক মোঃ সোলায়মান, নাগরিক পরিষদের নেতা মোঃ নাদিরুজ্জামান, কাজী মোঃ জালোয়া, মোঃ নজরুল ইসলাম, হুমায়ন কবির পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা পরিষদের নেত্রী মোর্শেদা আক্তার, মনিকা আক্তার, পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদের ছাত্র নেতা মোঃ নাজিম আল হাসান, তাজুল ইসলাম তাজ, মামুনুর রশীদ মামুন, আরিফুল হক, সাইফুল ইসলাম, মাঈনুদ্দীন, রাজু,মোঃ রকি, আনোয়ার হোসেন জনি, মোঃ শাকিল, মোঃ আতাউর, মোঃ জিল্লুর রহমান, মোঃ খলিল প্রমুখ।

গত ১৫ ই আগস্ট রাত ১.৩০টায় দীঘিনালা উপজেলার বাবুছড়া সোনা মিয়া টিলার ভূমি রক্ষা কমিটির সভাপতি মোঃ আবদুল মালেকের বাড়ীতে ঘুমন্ত পরিবারের উপর ইউপিডিএফ কর্তৃক উক্ত সন্ত্রাসী হামলা সংঘটিত হয়। এই সময় ইউপিডিএফের সন্ত্রাসীরা এলোপাথাড়ি ২০/২৫ রাউন্ড গুলি করে পালিয়ে যায়। গুলি থেকে আ: মালেক প্রাণে বেঁচে গেলেও তার স্ত্রী মোরশেদা বেগম (৪০) নিহত হয় এবং গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় তাঁর ছেলে মো: আহাদ(১১)। আব্দুল মালেক সোনা মিয়া টিলার (৮১২ পরিবারের) ভূমি রক্ষা কমিটির সভাপতি।