স্টাফ রিপোর্টার । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত বনযোগীছড়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হেমন্ত চাকমার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার (১১এপ্রিল) দিনগত গভীর রাতে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ থানায় নিয়ে আসে।

এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জুরাছড়ি উপজেলা সন্তু গ্রুফের পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির নিয়ন্ত্রিত এলাকা হিসেবেই পরিচিত। তবে নিহত হেমন্ত এক সময় ইউপিডিএফ’র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলো। পরবর্তীতে তিনি আ’লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত হয়েছিলো। এরপর সন্তু গ্রুফের জেএসএস এর চাপে আ’লীগের রাজনীতি থেকে সরে আসেন তিনি।

তার পারিবারিক স্বজনরা বলছে, আমরা জানি না কেন হেমন্তকে এমন নৃশংস ভাবে হত্যা করা হয়েছে। তিনি কোন রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলো না। যারা এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানাচ্ছি।

জুরাছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুুদুল হাই বলেন, মরদেহটি ময়না তদন্তের জন্য আমরা রাঙামাটি সদর হাসপতালের উদ্দেশ্যে কিছুক্ষণ পর যাত্রা করবো। নিহতের স্বজনরা মামলা না করলে পরবর্তী সময়ে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করবে বলে যোগ করেন তিনি।

প্রসঙ্গত: ইউপি সদস্য হেমন্ত চাকমা উপজেলার তার পানছড়ি গ্রামের বাড়িতে কয়েকজন বন্ধুকে নিয়ে রাতের খাবার শেষে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এসময় কয়েকজন মুখোশ পরিহিত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী এসে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গুলি চালিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।