মহুয়া জান্নাত মনি, স্টাফ রিপোর্টার । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: সারাদেশে চলছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। এই সংক্রমণ প্রতিরোধে চলছে লকডাউন। এতে শ্রমিক সংকটে অনেক কৃষকরা জমির পাকা ধান কাটতে পারছিলেন না।

এই সংকটময় মুহূর্তে রাঙামাটির বন্দুক ভাঙ্গা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে কুমড়া পাড়া ও মগপাড়া গ্রামের কৃষকদের পাশে দাঁড়ালো একই এলাকার এলাকাবাসী। এই দুর্যোগ মুহূর্তে যাতে কোন চাষী তার পাকা ধান নষ্ট না হয় সেজন্য এক ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ নিয়েছেন এলাকাবাসী।

বৃহস্পতিবার সকালে ৪০ জনের একটি দল বন্দুক ভাঙ্গা ইউনিয়নের মগপাড়া গ্রামের ১ জন কৃষকের পাকা ধান কাটার মাধ্যমে এই কর্মসূচি শুরু হয়।

এসময়, কুমড়া পাড়া ও মগপাড়া এলাকার সমাজ সেবক মোহন চাকমা ও পদ্ম কুমার চাকমা, যুব সমাজের সভাপতি সিন্ধু মনি চাকমাসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
পর্যায়ক্রমে আরও অনেক চাষীর ধান কেটে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী। এদিকে দেশের এই সংকটের সময় বিনা পারিশ্রমিকে স্বেচ্ছাশ্রমে এভাবে ধান কেটে দেওয়ায় খুশি কৃষকরা।

কৃষক কষ্ণ চাকমা বলেন, ধান কাটার আগে চিন্তিত ছিলাম। এই করোনা সংকটে শ্রমিক না পাওয়ার কারণে। হঠাৎ করে এলাকাবাসীরা সিদ্ধান্ত নিলো একে অপরের সহযোগিতা করবে। এই উদ্যোগ আমি সাধুবাদ জানাই। সকালে এসেই ধান কাটা শুরু করেন এলাকাবাসী। আমি খুবই আনন্দিত। আগে কখনও এভাবে দেখেনি।

ধান কাটতে আসা গ্রামের সামজ সেবক মোহন চাকমা বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে জাতি এক ধরণের ক্রান্তিকাল পার করছেন। এই পরিস্থিতিতে মাঠের বেশিরভাগ কৃষকের ধান পেকে গেছে। শ্রমিক সংকটে চাষীরা ধান কেটে ঘরে ওঠাতে পারছেন না। তাই আমাদের সমাজের মুরব্বিরা এক আলোচনা করি এবং একে অপরের যাতে সহযোগিতা করতে পারি। স্বেচ্ছাশ্রমে চাষীদের পাকা ধান কেটে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। এটা চলমান থাকবে। এভাবে সবাই এগিয়ে আসলে কৃষকদের কষ্ট লাঘব হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।