স্টাফ রিপোর্টার । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: বরকলে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি মিলে ভূমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। বরকল উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সুবলং ইউপি ৯নং ওয়ার্ড সদস্য জাহাঙ্গীর মেম্বার ও ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ খাদেম আলী। এই দুই ভূমি দস্যুও বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিকঅভিযোগ। আওয়ামীলীগ নেতা খাদেম আলী ও বিএনপি নেতা জাহাঙ্গীর মেম্বারের অত্যাচাওে এলাকার নিরীহ অসহায় মানুষগুলো জমি-জামা হারানোর আতংকে দিনতিপাত করছে।

শনিবার (২২আগষ্ট) দুপুরে রাঙামাটি রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বরকল ২২নং কুরকুটিছড়ি মৌজার স্থায়ী বাসিন্দা ও ভুক্তভোগিরা এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই দুই ভূমি দস্যুও বিরুদ্ধে এসব অভিযোগতুলে ধরেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগ পাঠকরেন, ভুক্তভোগি খলিলের স্ত্রী ফাতেমা বেগম।

লিখিত বক্তব্যে বলেন,২২নং কুরকুটিছড়ি মৌজা ও ৪নং বরুনাছড়ি মৌজার শতশত জমি ভুয়া হেডম্যান প্রতিবেদন দিয়ে নামে-বেনামে ভুয়া রেজিস্ট্রেরি করে আতœসাৎ করছে। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধমকিসহ জানে মেরে ফেলার ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে। তাই তাদেও ভয়ে কেউ মূখ খুলছেনা।

সম্প্রতি এব্যাপারে জেলা প্রশাসক বরাবওে সুবিচার চেয়ে দরখাস্ত দেওয়া হয়েছে। আমরা ভুক্তভোগিরা কোথাও কোনবিচার পাচ্ছিনা। দিনদিন তাদের অত্যাচারের মাত্রা বেড়েই চলছে। আমরা ভুয়া হেডম্যান জাহাঙ্গীর মেম্বার ও খাদেম আলীর সুষ্ঠু বিচার চাই।

এব্যাপারে অভিযুক্ত বিএনপির নেতা জাহাঙ্গীর মেম্বার মুঠোফোনে বলেন, স্থানীয় ভাবে আমরা জমি-জামার জায়গার ঝামেলা মিট করে দেই। এতে যদি কেউ বলে ভূমিদস্যু বা ভুয়া হেডম্যান তাতে আমার করার কিছুই নেই। তবে আমার বিরুদ্ধে যে সব কথা-বার্তা বলছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

বরকল থানার ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, এব্যাপারে কেউ থানায় অভিযোগ নিয়ে আসেনি। তবে শুনেছি জেলা প্রশাসক বরাবরে বাদীরা লিখিতঅভিযোগ দিয়েছ। আমার কাছে প্রমানপত্র নিয়ে আসলে আইনী সহায়তা দেব।