উপজেলা প্রতিনিধি । হিলরিপোর্ট

বরকল: রাঙামাটির বরকল উপজেলায় তারাবি নামাজ শেষে দুই মুসল্লীর মধ্যে মারপিঠের ঘটনা ঘটেছে। রোববার (০৩মে) রাতে উপজেলার সুবলং ইউনিয়নের বরুণাছড়ি মসজিদে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রোববার রাতে মসজিদে তারাবি নামাজ শেষ মসজিদের মুসল্লীরা সোলার ক্রয় করার আলোচনায় বসে। এসময় মুসল্লী ফিরোজ গাজী সকল মুসুল্লিদের উদ্দেশ্য বলেন, সোলারটি ক্রয় করতে সকলে কিছু টাকা দান করুন। সোলারটি ক্রয় করা গেলে ফ্যান ও লাইট জ্বালানো যাবে। এরপর বিষয়টি নিয়ে আরেক মুসল্লী সিদ্দিক বিষয়টি নিয়ে হট্টগোল করে এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটিকে দোষারোপ করে। এ নিয়ে উভয়পক্ষ মারপিঠে লিপ্ত হয়।

মুসল্লী ফিরোজ গাজীর বলেন, সিদ্দিকের ছেলে মোঃ শামিম তার ভাতিজা মো. বেলালকে লাথি মারে। এরপরই মারামরির ঘটনা ঘটে। তবে মুসল্লীরা এসে উভয় পক্ষকে শান্ত করে।

এদিকে সিদ্দিক এর সাথে যোগাযোগ করতে না পারায় তার ভাতিজা নাসির উদ্দিন রেজা এবং সিদ্দিকের ছেলে শামিমের সাথে যোগাযোগ তারা জানান, পারি, ঘটনাটির সম্পূর্ন দোষ ফিরোজ গাজীর। ফিরোজ গাজীর ভাতিজা বেল্লাল এবং ইসমাইল সিদ্দিকের ছেলে শামিমকে মারধর করেন।

এ বিষয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি মোঃ জাফর মোল্লার সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- মসজিদের সোলার ক্রয় করার জন্য বিষয়টি ফিরোজ গাজী মসজিদে জামাত শেষে উত্থাপন করলে সিদ্দিক তাকে অকথ্য ভাষায় গালগাল করে। এরপরই মারপিঠের ঘটনা ঘটে। তবে উপস্থিত মুসল্লীরা উভয় পক্ষকে শান্ত করে।

তিনি আরো বলেন, মসজিদের ইমাম সাহেবেরও এখানে কিছু ভূল রয়েছে।কারণ মসজিদের যা কিছু প্রয়োজন হবে সেটা মসজিদ কমিটি দেখবে এবং ইমাম সাহেবের উচিৎ ছিল মসজিদ কমিটির সভাপতি,সম্পাদকের সাথে আলোচনা করা। তাহলে হয়তো এরকম ঘটানার মুখোমুখি হতে হতো না আজ।