মঈন উদ্দীন বাপ্পী, হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন’র সহ-সভাপতি ডা: দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন বলেন-ভঙ্গুর বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন-কে (বাজুস) আলোকিত করেছে সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট পদে দায়িত্ব নেওয়া সায়েম সোবহান আনভীর। ৭০০ সদস্য থাকা সংগঠনটির দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি ৪০হাজার সদস্য করেছেন। দেশের ৫০ জেলায় সংগঠনটির কার্যক্রম চলছে আজ পর্যন্ত। সামনে পুরো দেশে এ সংগঠনটির কার্যক্রম চলবে।

শুক্রবার (২৫নভেম্বর) দুপুরে রাঙামাটির আশিকা কনভেশন পার্কে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন’র মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাজুস’র এ নেতা আরও বলেন- গোল্ড ব্যবসা দেশের গার্মেন্টস শিল্পের পর বড় ব্যবসায়ে পরিণত হবে। বাজুস সদস্যদের একাগ্রতা নিয়ে কাজ করতে হবে। এইজন্য আমাদের প্রেসিডেন্ট তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করছে।

বাজুস নেতা ডা: দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন বলেন- স্বর্ণের ডার্সগুলো নিয়ে হ্যান্ডমেইক অলংকার তৈরি করা যায়। এটি বিশে^র মধ্যে বর্তমানে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এইজন্য পার্বত্যাঞ্চল একটি সম্ভবনাময় এলাকা। কেউ যদি স্বর্ণের ডার্সগুলো নিয়ে হ্যান্ডমেইক অলংকার তৈরি করে তাহলে আমাদের প্রেসিডেন্ট সরকারের কাছ থেকে উদ্যোক্তা হিসেবে তার জন্য পুরুষ্কারের ব্যবস্থা করে দিবেন।

ডা: দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন আরও বলেন- আমরা পিউর গোল্ডের ব্যবসা করছি। সরকারকে ভ্যাট, কর দিচ্ছি। এক অসাধু শ্রেণী রয়েছে তারা চোরাই স্বর্ণের ব্যবসা করে। সম্ভাবনাময়ী ব্যবসাটিকে কলুষিত করছে। তাই তাদের ব্যাপারে আমাদের সচেতন থাকতে হবে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তাদের তুলে দিতে হবে।

বাজুস নেতা বলেন- আমরা পুরো দেশে স্বর্ণের দাম একই রাখবো এবং অলংকারের গায়ে হলমার্ক করা থাকবে। যাতে অসাধু চক্র কোন সুযোগ নিতে না পারে।

তিনি স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন- আপনাদের জন্য আমাদের প্রেসিডেন্ট বাজুস’র সদস্য হতে সুবর্ণ সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। যাদের একটি মাত্র বক্স রয়েছে, এক ভরি স্বর্ণ রয়েছে। শুধু পৌরসভা বা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে একটি ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে আমাদের সংগঠনের সদস্য হতে পারবেন। কারণ আমরা কিছুদিন পর প্রচারণা চালাবো। বাজুস সদস্যদের থেকে একমাত্র স্বর্ণ ক্রয় করা যাবে। এর বাইরে কেউ অন্য কোন ব্যবসায়ী থেকে স্বর্ণ ক্রয় করলে এর দায় ভার বাজুস গ্রহণ করবে না।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সঙ্গীত, ধর্মীয় প্রার্থনা, অতিথিদের উত্তেরিয় পড়ানো, বিশেষ সম্মাননা ক্রেস্ট এবং মরোত্তর সম্মাননা প্রদান করা হয়।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন’র রাঙামাটি জেলার সভাপতি মৃদুল ধর এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশন’র সদস্য পবিত্র চন্দ্র ঘোষ, মো. রিপনুল হাসান, বাজুস স্ট্যাডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক্ট মনিটরিং ও চট্টগ্রাম বিভাগের সাধারণ সম্পাদক প্রণব সাহা। এ মতবিনিময় সভার আহবায়ক ছিলেন- বাজুস’র সদস্য বিকাশ ধর।

এসময় বাজুস’র চট্টগ্রাম বিভাগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সুধীর বণিক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুজিত ধর, দপ্তর সম্পাদক শম্বু ধরসহ কেন্দ্রীয় এবং জেলার শাখার নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।