॥ স্পোর্টস রিপোর্টার ॥

পুরো নাম আবু তৈয়ব। রাঙামাটি শহরে সকলের কাছে তৈয়ব নামে সুপরিচিতি। মানুষকে নানান বিপদে রক্ষা করার কারণে তাকে মানবতার দেবদূত বললেও কম বলা হবে।

কেননা যেখানে দুর্যোগ সেখানে তৈয়ব হাজির। কোথাও অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে সেখানে তিনি নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছে মানুষকে রক্ষায়। কোথাও সড়ক দুর্ঘটনা সেখানেও তিনি হাজির মানবতার দেব দূত হয়ে। তার সাহসিক কর্মকান্ড দেখে অনেকে অবাক হয়ে বলে কিভাবে সম্ভব এই ব্যক্তির পক্ষে ঝুঁকি নিয়ে মানুষকে সহযোগিতা করার।

তবে যে যা বলুক, তৈয়ব মানবতার দেবদূত হয়ে বিপদে পড়া মানুষককে সহযোগিতা করে যাচ্ছে স্ব-গৌরবে আপন মহিমায়। তার এ ধরণের কর্মকান্ডে জেলা শহরের বাসিন্দরা তাকে নিয়ে বেজায় খুশি এবং গর্ববোধ করে।

তৈয়ব তার এ কর্মকান্ড একটি নির্দিষ্ট গন্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে নিজের সুবাতাস ছড়িয়ে দিয়েছেন ক্রীড়াঙ্গনেও। ক্রীড়াঙ্গনে তার নামটি সমুজ্জল হয়ে থাকে সব সময়।

ব্যক্তি জীবনে তৈয়ব ক্রীড়াঙ্গন জগতে ভাল তারকা খেলোয়ার না হলেও ভাল এবং সুদক্ষ ক্রীড়া সংগঠক এ কথা এক বাক্যে স্বীকার করে ক্রীড়াঙ্গনের বাসিন্দারা। শ্রম এবং নিজ পকেটের অর্থ নিয়ে খেলোয়ার পৃষ্টপোষকতায় তার জুড়ি নেই।

মানবতার দেবদূত তৈয়ব হিল রিপোর্টকে একান্ত সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ক্রীড়াঙ্গনের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে।

তৈয়ব বলেছেন, রাঙামাটির সুনাম ধন্য প্রতিভা ক্রিকেট ক্লাবের আমি তিনবার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছি। ক্লাবটির একটা সময় রেজিস্ট্রেশন ছিলো না বলে জানান তিনি। এজন্য সরকারের পক্ষ থেকে ক্রীড়াঙ্গনের উন্নতির জন্য যেসব সুযোগ সুবিধা দেওয়া হতো সেসব সুযোগ সুবিধা থেকে ক্লাবটি বঞ্চিত হতো। সভাপতির দায়িত্বভার গ্রহণ করে তিনি ক্লাবটিকে রেজিস্ট্রেশন করেছেন। শুধু ক্লাবটিকে রেজিস্ট্রেশন করে ক্ষান্ত হননি তিনি। ক্লাবটির সার্বিক উন্নয়নে রেখেছেন অসামান্য অবদান।

তিনি আরও বলেন, সভাপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ক্লাবটির সুনাম চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। ক্রিকেটের প্রতিটি বিভাগের প্রতিযোগিতায় ক্লাবটির জয়জয়কার।

ক্লাবটি তার আমলে রিজিয়ন কাপ টি-টোয়েন্টিতে দুবার চ্যাম্পিয়ন, তিনবার রার্নারআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে। এছাড়া মাস্টার হারাধন স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে ক্লাবটি চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

তিনি জানান,এক সময়ে ঝিঁমিয়ে পড়া ক্লাবটির দায়িত্বভার গ্রহণ করার পর কার্যকরী করে তুলেছেন। বর্তমানে ক্লাবটি স্ব-গৌরবে ঝলঝল করছে রাঙামাটির ক্রীড়াঙ্গনে। ক্লাবটির মাধ্যমে তিনি গড়ে তোলেছেন রাঙামাটি অনেক তারকা খেলোয়ার। বর্তমানে তারা জেলার ক্রীড়াঙ্গনে আলো ছড়াচ্ছে। এছাড়া দুর্যোগে বিপন্ন মানুষের পাশে থাকার কারণে তাকে রাঙামাটি পৌরসভা সম্মাননা প্রদান করেছেন বলে যোগ করেছেন তিনি।

বহুগুণে গুণান্বিত এবং ক্রীড়া সংগঠক তৈয়ব আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর রাঙামাটি জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনে কার্যনির্বাহী সদস্য পদে প্রজাপতি মার্কা নিয়ে নির্বাচন করছেন। এজন্য তিনি সকল ক্রীড়ামোদীর সহযোগিতা কামনা করেন।