স্টাফ রিপোর্টার । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: নভেল করোনা ভাইরাসের(কোভিড ১৯) ভয়ে যেখানে সাধারন মানুষ তটস্থ, সেখানে সব ভয়-ভীতি উপেক্ষা করে নিজেদের সুরক্ষার তোয়াক্কা না করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে রাঙামাটি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে সভাপতি শাহাদাৎ হোসেনের নেতৃত্বে প্রতিদিনেই নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের নিজ অর্থায়নে দুয়ারে দুয়ারে রোদ বৃষ্টির মাঝেও রমজানের উপহার বিতরণ করে আসছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা।

তারই ধারাবাহিকতায় রোববার (০৩মে) বিকেলে রাঙামাটি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে রোজা রেখেও রমজানের উপহার কাধে বহন করে ৩০ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বাসার দোরগোড়ায় পৌছিয়ে দেয় নেতৃবৃন্দরা।

উপহার সামগ্রী বিতরনে রাঙামাটি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন, সাধারন সম্পাদক রাসেল তালুকদার,সহ সভাপতি দিদারুল তালুকদার সেতু,যুগ্ম সম্পাদক মিঠুন বড়ুয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীরসহ অন্যান্য নেতৃত্ববৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের গৃহীত করোনা মহামারী পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে গিয়ে রাঙামাটি জেলার কোন মানুষ যেন ত্রাণ সহায়তা থেকে বঞ্চিত না হয় সেদিকে খেয়াল করে আমরা কর্মসূচী হাতে নিয়ে ১লা এপ্রিল থেকে আজকে পর্যন্ত ১হাজার ৪শত কর্মহীন মানুষ এবং ১শত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মধ্যে ত্রান ও ইফতার সামগ্রী উপহার এবং উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে গণমাধ্যমকর্মীদের মধ্যে পিপিই উপহার দিতে সক্ষম হয়েছি।

রাঙামাটি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সাধারন সম্পাদক রাসেল তালুকদার জানায়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের আদর্শ বুকে ধারন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সভাপতি শাহাদাৎ হোসেনের নেতৃত্বে করোনার মত ভয়াবহ পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া নিম্নবিত্ত,মধ্যবিত্ত ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের প্রতিনিয়তই নিজ অর্থায়নে দুয়ারে দুয়ারে রোদ বৃষ্টির মাঝেও রমজানের উপহার বিতরন করে আসছি।

রাঙামাটি জেলায় এই পর্যন্ত প্রায় ১৪০০ পরিবারকে আমরা উপহার পৌছিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন কেউ যাতে ত্রাণ হতে বঞ্চিত না হয় সেই বিষয়টি মাথায় রেখে আমরা আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছি তবে কোন বিত্তবান ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সহযোগীতা পেলে আমাদের এই কার্যক্রম আরো দীর্ঘদিন ধরে চালিয়ে যেতে পারবো।