॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥
সারাদেশে সাংবাদিকদের মুক্ত সাংবাদিকতার পথে নানাভাবে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হচ্ছে। আইসিটি আইনে মামলার ভয় দেখিয়ে সাংবাদিকদের কাজের ক্ষেত্রগুলো ক্ষুন্ন করা হচ্ছে। একই সময়ে দেশের বিখ্যাত সাংবাদিকরা দেশের বাস্তবতা নিয়ে যে মৌলিক আলোচনা করে তা বন্ধ হয়ে গেছে।
সোমবার (১৬ মার্চ) সকালে রাঙামাটি কর্মরত সাংবাদিকদের উদ্যোগে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে নিখোঁজ সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলকে উদ্ধার ও নির্যাতিত আরিফুল ইসলাম রিগ্যানকে নির্যাতনকারী কুড়িগ্রামের ডিসিসহ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের  শাস্তির দাবি এবং সারাদেশে খুন,গুম,হামলা ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন।
মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, সংবাদপত্র হলো রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। রাষ্ট্রের এই স্তম্ভ যখন দুর্বল করা হয়, তখন কাদা পড়তেই রাষ্ট্রে আমবশ্যার অন্ধকার নেমে আসে। সরকারের দায়িত্বশীল মানুষের কাছে অনুরোধ জানায়, আপনাদের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে এবং দেশের প্রয়োজনে সাংবাদিকদের ঠিকমত কাজ করতে দিন। তা না হলে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে একধরনের বাকপ্রতিবন্ধী বাংলাদেশে পরিণত হবে।
বক্তারা আরও বলেন, এ ধরনের ঘটনা কোনোমেই মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। এ ঘটনায় সাংবাদিকদের যেমন অপমান ও অপদস্ত করা হয়েছে তেমনিভাবে সরকারের ভাবমূর্তিও নষ্ট করেছেন ওই জেলা প্রশাসক। অনতিবিলম্বে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।
এসময় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, দৈনিক গিরিদর্পনের সম্পাদক একেএম মকসুদ আহমেদ,দৈনিক রাঙামাটি এর সম্পাদক আনোয়ার আল হক, দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম এর সম্পাদক ফজলে এলাহী, প্রবীন সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে, দৈনিক যুগান্তর এর রাঙ্গামাটি জেলা প্রতিনিধি সুশীল প্রসাদ চাকমাসহ গণমাধ্যমে কর্মরত অন্যান্য সংবাদ কর্মীরা।