॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস ‘টেকসই উন্নয়ন, শান্তি ও সুশাসন’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে রাঙামাটিতে জেলা প্রশাসন, দুর্নীতি দমন কমিশন, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, দুনীতি প্রতিরোধ কমিটি ও সচেতন নাগরিক কমিটির যৌথ আয়োজনে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস ২০১৮ পালিত হয়েছে।

রোববার (৯ডিসেম্বর) সকাল ১২টায় উপজেলা সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি অমেলেন্দু হাওলাদারের সভাপতিত্বে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশীদ, জেলা পুলিশ সুপার আলমগীর কবীর, দুনীতি প্রতিরোধ কমিটি সভাপতি মায়াধন চাকমা প্রমুখসহ সরকারী কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দুর্নীতি শুধু বাংলাদেশের একক কোনো সমস্যা নয়, এটি বৈশ্বিক সমস্যা। তাই জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী কনভেনশন গ্রহণ করেছে। পাশাপাশি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে দুর্নীতিকে অন্যতম চ্যালেঞ্জ। মানববন্ধন শেষে একটি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের বিভিন্ন প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় এসে শেষ মিলিত হয়।

জেলা প্রশাসক তার বক্তব্যে বলেন, সরকারীভাবে দুদক এবং বেসরকারীভাবে টিআইবি সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। যদিও দুর্নীতি একেবারে নির্মূল করা সম্ভব হয় নাই, তবে অনেকখানি কমে এসেছে। দুর্নীতি প্রকাশের পাশাপাশি ভাল কাজের উদাহরণগুলোও তুলে ধরতে হবে। আমাদের সাবার লক্ষ্য হওয়া উচিত দুর্নীতি বিষয়গুলো আস্তে আস্তে কমিয়ে আনা। সে ক্ষেত্রে পারিবারিক ও সামাজিকভাবে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন সুশাসন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা গেলে দুর্নীতি দূর করা সম্ভব। এ জন্য সবাইকে এক সাথে কাজ করতে হবে।
আলোচনা সভার সভাপতি সমাপনী বক্তব্যে বলেন দুর্নীতি একটি বৈশি^ক সমস্যা। ফলে সবাইকে এ বিষয়ে সচেতন হওয়ায় প্রয়োজন। মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারনে সমাজে দুর্নীতি ব্যাপ্তি লাভ করছে এবং এই অবক্ষয় রোধ করার জন্য সামাজিক আন্দোলন প্রয়োজন। দুদকের নিকট টোল ফ্রি ১০৬ নাম্বার এ ফোন করে অভিযোগ জানানোর জন্য তিনি আহ্বান জানান।