মঈন উদ্দীন বাপ্পী । হিলরিপোর্ট

রাঙামাটি: করোনাভাইরাস মোকাবিলায় রাঙামাটির জেলা প্রশাসন পূর্বে থেকেই প্রস্তুতি সেরে রেখেছেন। দিন-রাত নির্বাহী ম্যাজিট্রেটগণ এবং প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারা কাজ করছেন বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়।

শনিবার (০৪এপ্রিল) দুপুর ১২টায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতি থেকে জানা গেছে, রাঙামাটিতে বর্তমানে চিকিৎসা সুরক্ষার জন্য ২০৪৯টি পিপিই মজুদ রয়েছে।

‘করোনাভাইরাস চিকিৎসার জন্য সরকারি ১১টি কেন্দ্রে ২৬৩টি বেড প্রস্তুতি রেখেছে। যার মধ্যে কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য প্রস্তুতকৃত বেড রয়েছে ১৪২টি। কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ডাক্তার প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে ৮৬জনকে এবং নার্স রয়েছেন ১০০জন।
বিবৃতিতে আরও বলা হয়- ‘ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রীর মধ্যে পিপিই রয়েছে ২০৪৯টি। যার মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে ৮৩টি। সর্বমোট মজুদের মধ্যে জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগের কাছে পিপিই মজুদ রয়েছে ৫০০টি।

এছাড়া সার্জিকেল মাস্ক রয়েছে ২৮৩০টি, বিতরণ করা হয়েছে ১০১টি। মাস্ক এন রয়েছে ৯৫-৫৬০টি, হাতে তৈরি মাস্ক ২৪০টি, বিতরণ করা হয়েছে ২০টি। এরমধ্যে জরুরী ঔষধ পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে।’

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়- ‘রাঙামাটিতে পূর্বে কোয়ারেন্টাইনে ছিলো ১৮৬জন। যার মধ্যে থেকে পূর্বে কোয়ারেন্টাইন ছাড়পত্র পেয়েছেন ১১০জন এবং ৪এপ্রিল ছাড়পত্র পেয়েছেন ০৯জন। সর্বমোট ৪এপ্রিল পর্যন্ত ১১৯জন কোয়ারেন্টাইন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

এছাড়াও কোভিট- ১৯ আক্রান্ত ব্যক্তিকে জরুরী চিকিৎসায় স্থান্তরের জন্য ০৩টি এ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।