॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

রাঙামাটিতে মাদক কেনা-বেচার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে বুধবার (১৮জুল্ইা) দুপুরে শহরের রিজার্ভ বাজারের একটি মুদি দোকান থেকে মদ তৈরির পাঁচ বস্তা কাঁচামাল (মুলি) উদ্ধার করা হয়েছে।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে উজ্জল ষ্টোর নামক মুদি দোকান থেকে উক্ত মুলি নামক কাঁচামালগুলো জব্দ করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বিপ্লব হোম দাশ।

এসময় দোকানদার উজ্জল দেবনাথ ভবিষ্যতে এই ধরনের বিক্রয় নিষিদ্ধ মদ তৈরির কাঁচামাল আর কোনো দিন বিক্রয় করিবেনা মর্মে প্রথমবারের ক্ষমা প্রার্থনা করে অঙ্গীকারনামা প্রদান করে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-১৯৯০ এর ২২(ক) ও (খ) ধারায় বিনা লাইসেন্সে দেশীয় মদ উৎপাদনের প্রধান উপকরণ “মুলি” সংরক্ষণ ও মজুদ করে বিক্রি করার অপরাধে রিজার্ভ বাজারস্থ নাপ্পি পট্টি এলাকার উজ্জল স্টোরের মালিক জনাব উজ্জল নাগকে ৫০০০/- (পাঁচ হাজার) টাকা অর্থদন্ড, অনাদায়ে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ প্রদান করে মোবাইল কোর্ট কর্তৃপক্ষ তাকে ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করে দেন।

এসময় তিনি বলেন, বিক্রয় নিষিদ্ধ মাদক তৈরির কাঁচামাল বিক্রির অপরাধ জনসম্মুখে স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করায় স্থানীয় ব্যবসায়ি সমিতির নেতৃবৃন্দের অনুরোধে উদ্ধারকৃত মালামালগুলো জব্দ করার পাশাপাশি উক্ত উজ্জল স্টোরের মালিককে জেল নাদিয়ে অর্থ দন্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে যদি এই ধরনের বিক্রয় নিষিদ্ধ জিনিসপত্র বিক্রি করে এমন তথ্য আমরা পাই তাহলে তাকে জেল এবং জরিমানা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে। এসময় জেলা প্রশাসনের পেশকার নজরুল ইসলামসহ পুলিশের সদস্যগণ মোবাইল কোর্টকে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে।

অভিযান শেষে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পল্লব হোম দাশ বলেন, রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন। তারই জিরো টলারেন্স নীতিতে জেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ মাদকের বিরুদ্ধে সারাদেশের ন্যায় পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতেও অভিযান পরিচালনা করছে।

এমতাবস্থায় মাদক জাতীয় দ্রব্যাদি কেনা-বেচার সাথে জড়িত কাউকেই নূন্যতম ছাড় দেওয়া হবেনা। এইসব নিষিদ্ধ কারবারের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে তথ্য দিয়ে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনকে সহযোগিতার আহবান জানিয়েছেন জনাব পল্লব হোম দাশ।