॥ মঈন উদ্দীন বাপ্পী ॥

রাঙামাটি আসবাবপত্র ব্যসায়ী প্রতিষ্ঠানকে দুর্নীতির করাল গ্রাস এবং অর্থ আত্মসাৎকারী ব্যক্তিদের কাছ থেকে রক্ষার দাবি তুলেছেন অত্র সমিতির নেতৃবৃন্দ। বৃহস্পতিবার (৭ফেব্রুয়ারী) সকালে শহরের বনরূপা এলাকার একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন হোটেলে সংবাদ সন্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য জানানো হয়।

সমতির সদস্যদের দাবি- বিলুপ্ত ৬ষ্ঠ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম শামীম এবং সাধারণ সম্পাদক আব্দুল শুক্কুর ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে সমিতির সদস্যদের জমানো ফান্ডের পুরো টাকা হিসেবের মার-প্যাচ দেখিয়ে লোপাট করে নিয়েছে।

এরপর এ সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক সমিতির এফডিআর একাউন্টের টাকা আত্মসাৎ করার পাঁয়তারা চালাতে থাকে। কিন্তু সমিতির সদস্যদের সচেতনতার কারণে এ কাজটি করতে ব্যর্থ হয় তারা।

নেতৃবৃন্দ আরও অভিযোগ করে বলেন- ৬ষ্ঠ ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠিত হওয়ার পর থেকে সভাপতি-সম্পাদক হিসেবের খাতায় শুভঙ্করের ফাকিঁ দিয়েছে।

গত ২৩ ডিসেম্বর উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা অত্র সমিতির হিসেব তলব করতে গিয়ে সমতির আয়-ব্যয়ের সামঞ্জস্য খুঁজে পায়নি। আর এ কারণে সমবায় কর্মকর্তাকে দুর্নীতিবাজ বলে দাবি তুলে সমতিরি সভাপতি-সম্পাদক।

বক্তারা আরও বলেন- রেজুলেশনের খাতায় মাসিক হিসাবের অনুমোদন নাই। নির্বাচন পরবর্তী সভাপতি-সম্পাদক দায়িত্ব নেওয়ার এক মাসের মাথায় সমিতির সদস্যদেও অবগত না করে ৫ লাখ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করে এবং প্রতিটি ফার্ণিচার আইটেম থেকে ২শ’ টাকা করে অতিরিক্ত চাঁদা আদায় করে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছে বলে অভিযোগ করেছে নেতৃবৃন্দ।

অনুষ্ঠিত সংবাদ সন্মেলনে এসময় উপস্থিত ছিলেন- অত্র সমিতির বর্তমান আহবায়ক হাজী দিদারুল আলম, সদস্য আব্দুল ওয়াদুদ, আব্দুল করিম বালি, হাজী লোকমান হোসেন, মহিউদ্দীন পিয়ারু,এমএন জাহাঙ্গীর, জয়নাল আবেদিন, সাজ্জাদ চৌধুরী, সাহেব আলী, রহমত উল্লাহ, এমরান হোসেন ঝন্টু, এবং আবুল বশর প্রমুখ।