॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন রামগড় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: শহিদুল ইসলাম ফরহাদ। বুধবার (২৮নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব বরাবর এ পদত্যাগপত্র জমাদেন। জেলা প্রশাসক মো: শহিদুল ইসলাম পদত্যাগ পত্রটি পাঠিয়ে দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জেলা বিএনপির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও রামগড় উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো: শহিদুল ইসলাম ফরহাদ জানান, দল থেকে নির্বাচন করার জন্য দলীয় মনোনয়পত্র কিনলেও সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহন করেনি। কিন্তু খাগড়াছড়ি ২৯৮ নং সংসদীয় আসনে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়া তারই আপন চাচা ও জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ ভূঁইয়ার সাজা স্থগিতের আবেদন উচ্চ আদালত কর্তৃক খারিজ হওয়ায় এ আসনে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করার লক্ষ্যেই তিনি পদত্যাগ করেছেন ।

শহিদুল ইসলাম ফরহাদ জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, সরকারের সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আইনী লড়াইয়ে ওয়াদুদ ভুইয়া নির্বাচন করতে পারবেন। কিন্তু ওয়াদুদ ভুইয়া নির্বাচন করতে না পারলেও আওয়ামী লীগকে খালি মাঠে গোল দেয়ার ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করার জন্য বিএনপির চেয়ারপাসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে দলীয় মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

তিনি জানান, “আমরা আন্দোলনের অংশ হিসেবে ও দেশনেত্রীর মুক্তির আন্দোলনকে তরান্বিত করার জন্য এ নির্বাচনে ” অংশগ্রহণ করছি। বাংলাদেশের জনগণ আমাদের পক্ষে রয়েছে। তারা ভোট কেন্দ্রে যাবে এবং নিজের ভোট রক্ষা করবে। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে খাগড়াছড়িসহ দেশের সব আসনেই বিএনপির প্রার্থীরা নির্বাচিত হবেন ইনশা আল্লাহ।

শহিদুল ইসলাম আক্ষেপ করে বলেন , খাগড়াছড়ি বর্তমান সরকারের এমপি ক্ষমতায় থেকে, শরনার্থী পুনর্বাসন চেয়ারম্যান হিসেবে প্রতিমন্ত্রী হিসেবে সরকারী সুযোগ সুবিধা,গাড়ী ফটোকল নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। অথচ বিরোধী দলের উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের পদত্যাগ করে নির্বাচনে অংশ নিতে হচ্ছে।

খাগড়াছড়ি আসনে লেভেল প্লেইং ফিল্ড তৈরী হয়নি অভিযোগ করে বলেন, পুলিশী হয়রানীর কারণে নেতাকর্মীরা বাড়ী ঘরে থাকতে পারছে না। হুমকী ধমকী দেয়া হচ্ছে। মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করে হয়রানী করা হচ্ছে।