উপজেলা প্রতিনিধি। হিল রিপোর্ট

বরকল: সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাঙামাটির দূর্গম বরকল উপজেলার সুবলং ইউনিয়নের কাপ্তাই হ্রদ ঘিরে গড়ে উঠা গ্রাম বরুণাছড়িতে সন্ধ্যা বাতি জ্বলার সাথে সাথে সিগারেট-পান-চাবাজদের আড্ডাবাজি শুরু হয়ে যায়। এইযেন দেখার কেউ নেই।

এলাকাটি পানি পথে হওয়ায় প্রশাসনের পক্ষ এখানে এসে এমন পরিস্থতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়ে উঠে না। যে কারণে স্থানীয়রা কোন নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা না করে দিন-রাত বিকিকিনি এবং দোকান-পাটগুলােতে আড্ডবাজিতে মেতে উঠে।

ওই এলাকার তরুণ সমাজ মনে করে বিশ্বব্যাপী করোনা যেভাবে গ্রাস করেছে তার ভয়াবহতা আমাদের দেশও ভোগ করছে। মানুষদের অসচেতনতায় তা আরও ভয়ংঙ্কর রূপ ধারণ করবে। বরকল উপজেলাটি এমনিতে সীমান্তবর্তী অঞ্চল। বিভিন্ন মা্নুষের আনাগোনা এ রুট দিয়ে হয়। পাশাপাশি এখন চায়ের দোকানগুলােতে হরদম চলছে আড্ডাবাজি। থামানোর কেউ নেই। যে প্রভাব এই এলাকায়ও হতে পারে। তরুণ সমাজটি মনে করছে এখনি সময় লাগাম টেনে ধরার।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই এলাকায় গ্রাম আনসার-ভিডিপি’র সদস্যরা এসব আড্ডাবাজি বন্ধের আহ্বার জানালেও এসব আড্ডাবাজরা এসব বিষয়ে পাত্তাই দেয় না।

তরুণ সমাজ মনে করে, আমরা এমনিতে ঝুঁকিতে আছি, এখানে দ্রত সময়ের মধ্যে আড্ডাবাজি বন্ধ করা না গেলে এই এলাকায় করোনার প্রভাব বন্ধ করা কোনদিন সম্ভব হয়ে উঠবে না। তারা এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।

এ বিষয়ে বরকল উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. বেলাল হোসেন বলেন, আমরা আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে করোনার ভয়াবহতা এবং  সচেতনতা অব্যাহত রেখেছি। এই উপজেলার দ্বীপ নিয়ে কিছু এলাকা গড়ে উঠায় উপজেলার সাথে যোগাযোগ তেমন একটা ভাল না। যে কারণে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে। তবে এ ব্যাপারে প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে বলে ছাত্রলীগের এ নেতা যোগ করেন।

বরকল উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মনজুরুল হক বলেন, স্থানীয়দের মাধ্যমে আমরা জেনেছি ওইসব দ্বীপ এলাকায় জেলা-মাঝিদের আড্ডাবাজি জমে। কিন্তু দেশের এমন পরিস্থিতিতে এমন আড্ডাবাজি চলতে দেওয়া যায় না। তাই ওই এলাকায় এইবার পুলিশ মোতায়েন এর মাধ্যমে দ্রুত সময়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।