॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

দীর্ঘ ১৩বছরেও হয়নি রাঙামাটির সাংবাদিক মো. জামাল উদ্দীন হত্যার বিচার। তাই বিচার বিভাগের উপর আস্থাহীনতায় পরেছে তার পরিবার। দীর্ঘ ১৩বছর ধরে মামলা চালু থাকলেও কোন কূলকিনারা হয়নি এ হত্যাকান্ডের। গ্রেফতার করা হয়নি হত্যা মামরার কোন আসামীও। তা উদ্বেগ প্রকাশ রাঙামাটির সাংবাদিক সমাজ।

বৃহষ্পতিবার ছিল সাংবাদিক জামাল উদ্দীনের ১৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী। এ উপলক্ষে জামালের কবর জিয়ারত, দোয়া, কোরআন খতম ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে তার পরিবার।

রাঙামাটির সাংবাদিক জামালের ছোট বোন সাংবাদিক ফাতেমা জান্নাত মুমু বলেন, দীর্ঘ ১৩ বছর পূর্ণ হয়েছে। কিন্তু ভাই হত্যার বিচার পায়নি। বিচারের দাবিতে অনেক বার রাস্তায় নেমেছি। কোন লাভ হয়নি। সরকারের বিচার বিভাগ তার ভাই হত্যার বিচার করেনি। বিচার চাইতে চাইতে আমি হাপিয়ে গেছি। তদন্তের পর তদন্ত হলো।

কিন্তু কোন রহস্য উন্মোচন করতে পানেনি তারা। বার বার হয়রানির শিকার হয়েছি। পাশে ছিলনা কেউ। একাই লড়েছি, লড়ছি!! আর কত? ২০০৭ সালে ৭মার্চ নির্মমভাবে হত্যা করা হয় আমার ভাইকে।

খুন হওয়ার আগে তাকে যারা হুমকি দমকি দিতো তাদের নাম উল্লেখ করে সেসময় আমার ভাই একিিট মামলাও করেছিলো। কিন্তু সে আসামীদের আজও গ্রেফতার করতে পারেনি প্রশাসন। আমার ভাইয়ের লাশ পাওয়ার আগে সে নিখোঁজ ছিল একদিন। আজও জানতে পারিনি কি স্বার্থে কারা আমার ভাইকে অপহরণ করে হত্যা করেছিল। শুধু এটা জানি আমার ভাই কখনো কারো রক্ত চক্ষুকে ভয় পেত না । কখনো আপোষ করেনি কোন অপরাধ-অপরাধীর সাথে। তাই হয়তো তাদের ক্ষোভের শিকার হতে হয়েছে তাকে। বিচার না পেয়ে আমি আস্থাহীনতায় পরেছি। তবে সরকার চায়লে আমি আমার ভাই সাংবাদিক জামাল হত্যার বিচার পাবোই।

অন্যদিকে, প্রতিবছর এ দিনে সাংবাদিক সমাজ জামাল হত্যার বিচারের দাবিতে বিভিন্ন মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সামাবেশের আয়াজন করে থাকলেও এ বছর করেনি। কারণ দীর্ঘ বছরেও বিচার না পেয়ে হতাশা দেখা দিয়েছে সাংবাদিক মহলের মধ্যে। তারা বলছে, দীর্ঘ বছর ধরে এ হত্যাকান্ডের বিচার না হওয়ার কারণে আইনের উপর আস্থাহীনতায় পরেছে তারা।

এ ব্যাপারে রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক রাঙামাটির সম্পাদক আনোয়ার আল হক জানান, সাংবাদিক জামালকে হত্যা করা হয়েছে এটা ঠিক। কারণ সেদিন তার ক্ষতবিক্ষত মরদেহ দেখে আমরা তাই বুঝতে পেরেছি। কিন্তু কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে সেটা কেউ জানেনা। সে রহস্য কোন তদন্ত কর্মকর্তা বের করতে পারেনি। আর আইন প্রমাণ চাই। প্রমাণের অভাবে হয়তো এ হত্যাকান্ডের বিচার কোন দিন হবে কিনা তা আমার জানিনা।

প্রসঙ্গত, ২০০৭সালে ৫মার্চ নিখোঁজ হয় রাঙামাটির সাংবাদিক মো. জামাল উদ্দীন। এরপর ৬মার্চ রাঙামাটি পর্যটন এলাকার হেডম্যান পাড়ার জঙ্গলে তার রক্তাত্ব মরদেহ উদ্ধার করে তার পুলিশ। সাংবাদিক জামাল সে সময় পার্বত্যাঞ্চলের একজন আলোচিত সাংবাদিক ছিলেন। তিনি মৃত্যুর আগর পর্যন্ত দৈনিক বর্তমান বাংলা, বার্তা সংস্থা আবাস ও বেসরকারি টেলিভিশন এনটিভিতে কর্মরত ছিলেন।