॥ বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি ॥

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার দূর্গম সাজেক ইউনিয়নের ১১টি গ্রামে হাম রোগ নতুন করে আবারো হানা দিয়েছে। এতে একই পরিবারের ৪শিশুসহ ১৫০জন আক্রান্ত হয়েছে। সোমবার (৩০মার্চ) রাতে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন, বাঘাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: মো. ইফতেখার আহমেদ।

এর আগে গত কয়েকমাসে হামে আক্রান্ত হয়ে ৮শিশু মারা যায় এবং শতাধিক শিশু আক্রান্ত হয়। তবে নতুন করে হামে হানা দেওয়ায় বর্তমানে ওই ইউনিয়নের পুরো গ্রামগুলোতে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে সাজেক ইউনিয়নের নতুন আক্রান্ত গ্রামগুলো হলো- ভুয়াছড়ি, কজইতলী, কজইছড়ি, শিলছড়ি, লাম্বাবাক, তালকুম্বা, বেতবুনিয়া, শীব পাড়া, বড়ইতলী, সাত নং পাড়া, ডেবাছড়া ও উজানছড়ি গ্রাম উল্লেখযোগ্য।

জানা গেছে, চলতি মাসের ২৫তারিখ থেকে সেনাবাহিনী, বিজিবি এবং স্বাস্থ্য বিভাগের যৌথ সমন্বয়ে ২টি মেডিকেল টিম এ রোগ থেকে পরিত্রাণ পেতে শুরু থেকে কাজ করে যাচ্ছে। তবে ডাক্তারদের অভিমত, কুসংস্কার এবং ধর্মীয় গোঁঁড়ামির কারণে এসব জনপদের মানুষের শিশুরা টিকা নিতে অনীহা প্রকাশ করায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

এছাড়াও ওই এলাকাগুলোর সাথে উপজেলা সদরের অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, অসচেতনতা এবং এলাকাগুলো দূর্গম হওয়ার কারণে যথাসময়ে চিকিৎসা সেবা দিতে ডাক্তারদের বেশ বেগ পেতে হয় বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

আক্রান্ত এলাকার ৭নং পাড়ার কার্বারী (গ্রাম প্রধান) দয়াল ত্রিপুরা বলেন, গত ২দিন থেকে আমার এলাকায় মোট ১৬জন হাম রোগে আক্রান্ত হয় এবং তারা সকলই এক থেকে আট বছরের শিশু। তার মধ্যে একই পরিবারের চার শিশুও রয়েছে।

আক্রান্ত চার শিশুর মা প্রতিমালা ত্রিপুরা জানান, রোববার সকাল থেকে আমার চার সন্তানের শরীরে হটাৎ জ্বর উঠে এরপর রাত থেকেই তাদেও শরীর লাল হয়ে যায়। এখন পর্যন্ত তাদের কোন ঔষধ খাওয়ানো হয়নি। শুধু গরম পানি খাওয়ানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. ইফতেখার আহমেদ জানান, আগে থেকেই সেখানে আমাদের দুইটি মেডিকেল টিম কাজ করছে এবং নতুন আক্রান্তের খবর পেয়ে আমরা ডা. বিষ্ণুপদ দেব নাথ এর নেতৃত্বে সোমবার সকালে ৫সদস্যের আরেকটি মেডিকেল টিম পাঠিয়েছি। টিমটি পৌছে গিয়ে আক্রান্ত এলাকায় চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করেছে বলে ডা: ইফতেখার যোগ করেন।