আজগর আলী খান, উপজেলা প্রতিনিধি । হিলরিপোর্ট

রাজস্থলী: রাস্তার সৃষ্ট একাধিক গর্ত সৃষ্টি এবং কার্পেটিং উঠে গিয়ে খানাখন্দে পরিণত হয়েছে রাঙামাটি রাজস্থলী উপজেলার ৩নং বাঙালহালিয়া ইউনিয়নের হেডম্যান পাড়া সড়ক।

বেহাল দশায় সড়কটি দিন দিন ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সে সাথে সংস্কারের অভাবের সড়কটির নাজুক। ড্রেনেজ ব্যবস্থা সামান্য বৃষ্টিতে ব্যাপক জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।
সড়কটি দিয়ে যানবাহন, এলাকাবাসী অসুস্থ রোগীদের চলাচলের চরম দুর্ভোগ পৌহাতে হচ্ছে। বাঙালহালিয়াবাজার, চন্দ্রঘোনা, সুখবিলাস, রাজার হাট, রাজস্থলী, বান্দরবান, সরবভাটা,শিলক, চট্রগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানের যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে এ সড়কের বেশ গুরুত্ব রয়েছে।

কর্তৃপক্ষের যথাযথ নজরদারীর অভাবে সড়কটি গত দুই বছর ধরে অযতœ আর অবহেলায় পড়ে আছে।

বৃহস্পতিবার সরজমিন ঘুরে দেখাযায় সড়কটির অনেক অংশেই কার্পেটিং ও ইট উঠে খোয়া বের হয়ে গিয়েছে। রাস্তার সৃষ্ট গর্ত আর খানা খন্দের কারণে সড়কটি দিয়ে যানবাহনের পাশাপাশি পায়ে হেঁটে চলাচল করাও বেশ কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ দিন ধরে সংস্কারের অভাবে ভরাট হয়ে গভীরতা কমে সড়কটির ড্রেনেজ ব্যবস্থার নাজুক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

সামান্য বৃষ্টিতে দেখা মিলেছে জলবদ্ধতার। রাস্তায় সৃষ্ট একাধিক গর্তে জমে থাকা পানিতে পায়ে হেঁটে চলাচলকারীদের পরিধেয় কাপর চোপর নষ্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল আবচার তালুকদার জানান, অসুস্থ শরীর নিয়ে এমন রাস্তায় চলাচল করা বিরক্তকর আর কষ্টদায়ক। কাজল বড়ুয়া নামক এক স্থানীয় বাসিন্দা জানান, সামান্য বৃষ্টিতে হাটু পরিমান জলবদ্ধতা এই সড়কে এখন নিত্যদিনের চিত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসময় তারা সড়ক টি দ্রুত সংস্কারের দাবি জানান।

বাঙালহালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আক্ষ্যমং মারমা জানান, বিদ্যালয়ে যাওয়া আসা, চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা, হাটবাজারের ক্রেতা, কলেজে সরকারি চাকরীজিবীরা চলাচল করে। সড়কের এমন দশায় তারা প্রতিনিয়ত ভোগান্তি পৌহায়।

স্থানীয় ব্যবসায়ী সামশুল আলম জানান, ইতোমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে অবগত করা হয়েছে। তিনি আগামী অর্থবছরে বরাদ্ধ দেওয়ার আশ্বাস দেন।

সড়কের বেহাল দশা নিয়ে কথা হলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ঞেমং মারমা জানান, পরিষদের সদস্যদের সাথে আলাপ করে এবার সড়কটি সংস্কারের জন্য এলজিডি বিভাগে আবেদন করা হবে। তবে দ্রুত সংস্কারের পদক্ষেপ নেওয়া হবে।