॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাঙামাটি জেলা বিএনপির উদ্যোগে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্মারক লিপি প্রদানে এবং বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকালে জেলা বিএনপির সভাপতি হাজি শাহ আলম সমাবেশে বক্তব্য প্রদানকালে বলেন, বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে একটি ন্যায়ভিত্তিক কল্যাণমূলক ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে নির্মাণ করার লক্ষ্যে এবং আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সকলের নিকট গ্রহনযোগ্য, অংশগ্রহনমূলক, অবাধ ও সুষ্ঠভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যেই ৭ দফা দাবি জানিয়ে আমরা এই স্মারক লিপি প্রদান করছি।

বিএনপির দেওয়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে মিছিল সহকারে জেলাপ্রশাসক কার্যালয়ে যাওয়ার পর তাৎক্ষণিকভাবে সেখানে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। রাঙামাটি জেলা বিএনপির সভাপতি হাজি শাহ আলম ছাড়াও এতে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রী নেতা লে: কর্ণেল (অব:) মণিষ দেওয়ান, জেলার সাধারণ সম্পাদক দীপেন তালুকদার দিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট সাইফুল ইসলাম পনির, যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট মামুনুর রশিদ, যুব দলের সাধারণ সম্পাদক আবু সাদাত মোঃ সায়েমসহ জেলা ও শহর বিএনপি এবং অন্যান্য অংগ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

পরে বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ রাঙামাটি জেলাপ্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের হাতে তার কার্যালয়ে গিয়ে স্মারকলিপি হস্তান্তর করে। স্মারক লিপিতে বলা হয়, গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে রাষ্ট্র পরিচালনার লক্ষ্যে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য করার জন্য অংশ গ্রহণমূলক, অবাধ ও সুষ্ঠভাবে পরিচালিত হওয়া অত্যন্ত জরুরী। সেই লক্ষ্যে আগামী নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বে  বর্ণিত দাবী সমূহ পূরণ করতে হবে, দাবিসমূহের মধ্যে ছিল –

(১) দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার। (২) জাতীয় সংসদ বাতিল করা। (৩) সরকারে পদত্যাগ ও সকল রাজনৈতিক দলের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা করা। (৪) যোগ্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশন পূর্ন গঠন করা হবে। নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার না করার বিধান নিশ্চিত করা। (৫) সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে প্রতিটির ভোটকেন্দ্রে ম্যাজেস্ট্রেসি ক্ষমতাসহ সশস্ববাহিনী নিশ্চিত করা। (৬) নির্বাচনের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে দেশীয় ও আর্ন্তজাতিক পর্যবেক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা এবং সর্ম্পূণ নির্বাচন প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষনে তাদের উপর কোন প্রকার বিধি-নিষেধ আরোপ না করা। (৭) দেশের বিরোধী-রাজনৈতিক নেতা-কর্মীর মুক্তি, সাজা বাতিল ও মিত্যা মামলা প্রত্যাহার।